মোংলার সক্ষমতা বাড়বে ১০ উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়িত হলে

মোংলার সক্ষমতা বাড়বে ১০ উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়িত হলে

ঢাকা: মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের নেওয়া ১০টি উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়িত হলে বন্দরের সক্ষমতা তিন থেকে চার গুণ বৃদ্ধি পাবে বলে সংসদীয় কমিটির বৈঠকে আশা প্রকাশ করা হয়েছে।

সোমবার (২৮ সেপ্টেম্বর) একাদশ জাতীয় সংসদের ‘নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটি’র ২৪তম বৈঠকে এ কথা জানানো হয়।

কমিটির সভাপতি বীর উত্তম মেজর (অব.) রফিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে সংসদ ভবনে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

বৈঠকে কমিটির সদস্য শাজাহান খান, রনজিত কুমার রায়, ডা. সামিল উদ্দিন আহমেদ শিমুল, মো. আছলাম হোসেন সওদাগর এবং এস এম শাহজাদা অংশ নেন।

বৈঠকে মোংলা ও পায়রা বন্দর কর্তৃপক্ষের নেওয়া উন্নয়ন প্রকল্পের বাস্তবায়ন অগ্রগতি, সমস্যা ও সমাধান সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়।

বৈঠকে জানানো হয় যে, গত অর্থ বছর মোংলা বন্দর ১১৫ কোটি টাকা নীট মুনফা অর্জন করে। বন্দর কর্তৃপক্ষের নেওয়া ১০টি উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়িত হলে বন্দরের সক্ষমতা তিন থেকে চার  গুণ বৃদ্ধি পাবে বলে বৈঠকে আশা প্রকাশ করা হয়।  কমিটি গৃহীত প্রকল্পগুলো অগ্রাধিকার দিয়ে দ্রুত শেষ করার সুপারিশ করে।

বৈঠকে দেশের প্রতিটি বন্দরে একটি করে ট্রমা সেন্টার এবং মেরিন একাডেমিতে একটি ৫-১০ বেডের হাসপাতাল স্থাপনের ওপর কমিটি গুরুত্বারোপ করে। কমিটি এ বিষয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে যোগাযোগ করে এটি বাস্তবায়নের সুপারিশ করে।

বৈঠকে বিদেশ থেকে আসা জাহাজে আমদানি করা বিষাক্ত দ্রব্যাদি খালাস করার সময় কোনো কারণে দুর্ঘটনা ঘটলে তা থেকে উদ্ধার এবং নিরাপত্তার পূর্ব প্রস্ততি হিসেবে প্রয়োজনীয় পিপিই, মাস্ক এবং আনুষঙ্গিক যন্ত্রপাতি সংগ্রহের ওপর গুরুত্বারোপ করা হয়। কমিটি এ বিষয়ে জরুরি ভিত্তিতে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে আলোচনা করে পদক্ষেপ নেওয়ার সুপারিশ করে।

বৈঠকে নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয়ের সচিব, মোংলা ও পায়রা বন্দরের চেয়ারম্যানসহ মন্ত্রণালয় এবং জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।