গ্যাস দিয়ে পানির পাইপ পরিষ্কারের সময় দগ্ধ ৫

গ্যাস দিয়ে পানির পাইপ পরিষ্কারের সময় দগ্ধ ৫

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি
নারায়ণগঞ্জের বন্দরে গ্যাসের সাহায্যে পানির পাইপ পরিষ্কারের সময় আগুনে পাঁচ জন দগ্ধ হয়েছেন। এদের মধ্যে চার জনকে গুরুতর দগ্ধ অবস্থায় ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হয়। দগ্ধরা হলেন মহসিন (৪০), মনির হোসেন (৫৫), সোলাইমান (৫০), নাজিমউদ্দিন (৫৫) ও মাহফুজ (১৪)। শনিবার (২৭ মার্চ) দুপুরে বন্দরের পূর্ব নোয়াদ্দা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। সন্ধ্যা পৌঁনে ৭টা এ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বন্দর থানার ওসি দীপক চন্দ্র সাহা।
এলাকাবাসী জানান, বন্দরের পূর্ব নোয়াদ্দা এলাকার সোলাইমানের বাড়ির পানি সরবরাহের পাইপলাইন আয়রনসহ ময়লা-আবর্জনা জমে বন্ধ হয়ে যায়। ফলে ওই বাড়ির গৃহকর্তা দুপুরে মহসিন ও মনির হোসেন নামে দুই মিস্ত্রিকে বাড়িতে ডেকে আনেন। মিস্ত্রিরা পাইপ পরিষ্কার করতে মেশিন ব্যবহার না করে গ্যাসের সাহায্যে কাজ করার চেষ্টা করেন। তারা অন্য একটি পাইপের মাধ্যমে রাইজার থেকে গ্যাস সংযোগ নিয়ে পানির পাইপে জমে থাকা আবর্জনা পরিষ্কার করতে থাকেন। এ সময় আগুন ধরে যায়। আগুনের লেলিহান শিখা ঘরের চারদিকে ছড়িয়ে পড়ে। এতে কিছু বুঝে উঠার আগেই দুই মিস্ত্রিসহ পাঁচ জন দগ্ধ হন।

এলাকাবাসী দগ্ধদের উদ্ধার করে প্রথমে বন্দর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। পরে সেখান থেকে চার জনকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। মাহফুজ নামে এক কিশোরকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে বাড়ি পাঠিয়ে দেওয়া হয় বলে হাসপাতাল সূত্র জানায়।

বন্দর থানার ওসি দীপক চন্দ্র সাহা জানান, পানির পাইপে ময়লা-আবর্জনা জমলে গ্যাসের সাহায্যে পাইপ পরিষ্কারের চেষ্টা করা হয়। এ সময় ধারণা করা হয় কেউ সিগারেটের আগুন ধরাতে গেলে আগুন লেগে যায়। এ ঘটনায় পাঁচ জন দগ্ধ হয়। এদের মধ্যে চার জনকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হয়। এদের মধ্যে দুই জনের অবস্থায় গুরুতর।
তিনি আরও জানান, ঘটনাস্থলে গিয়ে আগুনের লেলিহান শিখার আলামত পাওয়া গেছে। ঘটনাটি কীভাবে ঘটেছে তা এখনই সঠিকভাবে বলা যাচ্ছে না। নারায়ণগঞ্জ ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের উপ-সহকারী পরিচালক আব্দুল্লাহ আল-আরেফিন জানান, গ্যাস দিয়ে পানির পাইপ পরিষ্কার সময় আগুনে চার জন দগ্ধ হয়েছেন। এদেরকে ঢাকায় পাঠানো হয়েছে।
ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ পরিদর্শক বাচ্চু মিয়া সন্ধ্যায় জানান, বন্দরের দগ্ধরা ঢাকার শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক ইউনিটে ভর্তি হয়েছেন কিনা তা খোঁজ খবর নেওয়া হচ্ছে। পরে বিস্তারিত জানাতে পারবো।