ফরিদপুর ভন্ড প্রতারক শংকর সাধু বাবার বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ- মানবতারকণ্ঠ

ফরিদপুর ভন্ড প্রতারক শংকর সাধু বাবার বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ- মানবতারকণ্ঠ

 

উত্তম কুমার:
বাকেরগঞ্জ উপজেলার ৬ নং ফরিদপুর ইউনিয়নের ভাতশালা গ্রামের ফকির শংকর সাধু নামে পরিচিত অনেকদিন যাবত এলাকায় প্রতারণার মধ্য দিয়ে যাদু টোনার নাম করে এলাকার বিভিন্ন মানুষের কাছ থেকে প্রতারণা করে অনেক টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। এই ভন্ড ফকির নিজের আস্তানায় জাদুটোনার কথা বলে যুবতী মেয়েদের নিয়ে অজ্ঞান করে আমোদ ফুর্তি করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এই ফকিরের ভণ্ডামি ও প্রতারণায় অতিষ্ঠ এলাকাবাসী। এলাকা সূত্রে আরো জানা যায় জমি বিক্রি করার কথা বলে এক জমি কয়েকজনকে দেখিয়ে অনেকের কাছ থেকে টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। প্রতারণার শিকার ভুক্তভোগী মিনু আক্তার মাহফুজা বেগম লাইজু আক্তার আরো অনেকে । নাম প্রকাশ না করার তিনি বলেন মঙ্গলসি আমার নিকটতম আত্মীয় থেকে ৩৫,০০০ হাজার টাকা ভুয়া দিয়ে নিয়েছে। আমি গাজিতলা ব্রিজের সামনে বসে এই টাকা আদায় করি ও ও ৫০০ টাকা এখনো। এবং ভাতশালা অসংখ্য লোকের কাছ থেকে চিকিৎসার কথা বলে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে প্রতারক শংকর সাধু।

বাবার প্রতারণার দিকে হাত বাড়িয়ে দিয়েছে তার ছেলে সুমন দাস এলাকায় গোপন সূত্রে জানা যায় সুমন দাস একাধিক মামলার আসামি এসিড নিক্ষেপ গরম পানি নিক্ষেপ করে অনেককে অন্ধ অঙ্গহীন করেছে মাদকসম্রাট বলে পরিচিত
সুমনকে গ্রেফতারের সময় আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর হ্যান্ডকাফ নিয়ে পালিয়ে যাওয়ার সময় পাশে থাকা একজন এসআই সুমনের গতি অতিক্রম করে ধরে ফেলে ফেলে । ইউনিয়নের বিভিন্ন জায়গায় গাঁজা ইয়াবাসহ মাদক বিক্রি করে সুমনের রক্ষিত বাহিনী দিয়ে। অভিযোগ সূত্রে তদন্ত করলে ঘটনা প্রকাশ পাবে। সুমনের হাত থেকে যুব সমাজ ও এলাকার সাধারণ মানুষ বাঁচতে চায় কিছুদিন আগে এক ভদ্রলোকের গায় গরম পানি নিক্ষেপ করা মামলায় দুই থেকে তিন মাস জেল খেটে বেরিয়ে আসছে। আবারো বিভিন্ন মানুষকে প্রাণনাশের হুমকি সহ বিভিন্নভাবে ভয়ভীতি দেখায় যদি কেউ তার মাদক ব্যবসায়ী কথা বলে তা কে জানে মেরে ফেলার হুমকি দেয়। সেই ভয়ে এলাকার সাধারন জনগন মুখ খুলতে রাজি হয়নি অভিযোগের বিষয়ে সুমনের সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করলে তার মোবাইল ফোন বন্ধ পাওয়া যায়। এ বিষয়ে বাকেরগঞ্জ থানার ওসি আলাউদ্দিন মিলনকে জানতে চাইলে তিনি বলেন মাদক ও দুর্নীতিবাজদের সাথে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী আপস করেনা অপরাধী যতই শক্তিশালী হোক না কেন আমরা আইনের আওতায় নিয়ে আসব।