গণমাধ্যম-সরকার মুখোমুখি হলে দায় সরকারের’- মানবতারকণ্ঠ

গণমাধ্যম-সরকার মুখোমুখি হলে দায় সরকারের’- মানবতারকণ্ঠ

মানবতারকণ্ঠ ডেক্স:
সরকার সাংবাদিক যদি মুখোমুখি অবস্থান নেয় তাহলে এই দায় সরকারকে নিতে হবে বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের (বিএফইউজে) সভাপতি মোল্লা জালাল। বুধবার (১৯ মে) জাতীয় প্রেস ক্লাব প্রাঙ্গণে প্রথম আলোর জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক রোজিনা ইসলামের মুক্তির দাবিতে বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন (বিএফইউজে) আয়োজিত মানববন্ধনে এই কথা বলেন তিনি।

রোজিনার বিরুদ্ধে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের করা মামলা ডিবিতে স্থানান্তর
মোল্লা জালাল বলেন, রোজিনা ইসলামের ওপর যে অন্যায় হয়েছে, আমি মনে করি সংবাদ মাধ্যমের ওপর এ এক বর্বরোচিত হামলা। আমি এর নিন্দা জানাই। আজ সেই কারণে সমগ্র বাংলাদেশের সাংবাদিক সমাজ ফুঁসে উঠেছে। আজকের এই সমাবেশ থেকে আমাদের সুনির্দিষ্ট দাবি জানিয়েছি। আগামীকাল নিঃশর্ত মুক্তির মাধ্যমে রোজিনাকে আমাদের মধ্যে ফেরত চাই। আপনাদের প্রতি আগাম পরামর্শ তার মুক্তির পর আমরা তাকে বরণ করে নেবো, আমাদের সাফল্যের অংশ হিসেবে।

তিনি আরও বলেন, রোজিনার বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করতে হবে, এর কোনও বিকল্প নেই। রোজিনার বিরুদ্ধে যে অমানবিক নির্যাতন করা হয়েছে, তার তদন্তের জন্য উচ্চ পর্যায়ের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করতে হবে। সেই কমিটিতে সাংবাদিকদের অন্তর্ভুক্ত করতে হবে। এসব দাবি মেনে নেওয়া না হলে সাংবাদিকদের সব সংগঠনসহ আমরা সম্মিলিতভাবে কঠোর কর্মসূচিতে যাবো। আর তখন যদি সরকার গণমাধ্যম মুখোমুখি অবস্থান নেয়, তাহলে তার দায় সরকারকে নিতে হবে।

রোজিনার গ্রেফতারে জাতিসংঘের উদ্বেগ

বিএফইউজের সহ-সভাপতি সৈয়দ ইশতিয়াক রেজা বলেন, রোজিনার ওপর যে হাত পড়েছে সেটা দুর্নীতিবাজ আমলাতন্ত্রের কালো হাত। রোজিনা ইসলামের গলায় নয়, এদেশের জনগণের গলায় তারা হাত দিয়েছে। রোজিনা ইসলামকে সচিবালয়ে ৬ ঘণ্টা আটকে রাখা হয়েছে। বাংলাদেশের সবচেয়ে নিরাপদ জায়গা আজকে নির্যাতন ক্ষেত্রে পরিণত হয়েছে। আমি তার ওপর হামলা দেখি আমলাতান্ত্রিক নিপীড়ন হিসেবে। সুতরাং যারা এই কাজ করেছে তাদের বিচার করতে হবে।

এসময় বিএফইউজের পক্ষ থেকে দাবি তুলে ধরে বলা হয়-

১. সাংবাদিকরা কোনও তথ্যের জন্য ফাইল ধরে টানাটানি করে না। সরকারের লোকেরাই সাংবাদিকদের তথ্য সরবরাহ করে থাকে। রোজিনা ইসলামের বিরুদ্ধে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের আনা অভিযোগ হাস্যকর, অবান্তর ও উদ্দেশ্য প্রনোদিত।

নির্যাতনের কথা অস্বীকার, পাল্টা অভিযোগ স্বাস্থ্যমন্ত্রীর

২. পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে সাংবাদিকদের নিরাপত্তা নিশ্চিতকরাসহ তাদের সর্বাত্মক সহযোগিতা করা সরকারি কর্মচারিদের দায়িত্ব। তা না করে রোজিনা ইসলামের প্রতি দুর্নীতির নানাবিধ অভিযোগে অভিযুক্ত স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা উদ্দেশ্যমূলকভাবে যে আচরণ করেছে, তার দায় সরকার কোনোভাবেই এড়াতে পারে না।

৩. আগামীকালের মধ্যে রোজিনাকে জামিনে মুক্তি দিতে হবে এবং সাংবাদিক নেতৃবৃন্দের সমন্বয়ে উচ্চ পর্যায়ের নিরপেক্ষ তদন্ত কমিটি গঠন করে এই ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে।

রোজিনা ইসলাম ন্যায়বিচার পাবেন: আইনমন্ত্রী

৪. তা না করা হলে, দেশের সকল গণমাধ্যম প্রতিষ্ঠানের সকল সংগঠন, সাংবাদিক ইউনিয়ন ও প্রেসক্লাবসহ সাংবাদিকদের অপরাপর সংগঠনগুলোর সমন্বয়ে সারাদেশের সাংবাদিক, শ্রমিক-কর্মচারিদের নিয়ে বিএফইউজে কঠোর কর্মসূচি দিতে বাধ্য হবে।

৫. সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে হেনস্থা করার ঘটনাকে রাজনৈতিক দৃষ্টিকোণ থেকে বিবেচনায় নিয়ে ঘোলা জলে মাছ শিকারের অপচেষ্টা থেকে বিরত থাকার জন্য বিএফইউজে সব মহলের প্রতি আহবান জানানো হচ্ছে।

‘ছয় ঘণ্টা কী হয়েছিল সচিবালয়ে, তদন্ত করা হোক’

এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন, প্রেস ক্লাবের যুগ্ম সম্পাদক মাইনুল আলম, ডিআরইউ সাবেক সভাপতি সাইফুল ইসলাম, ডিউজে সাবেক সভাপতি আবু জাফর সূর্য, প্রথম আলোর সহযোগী সম্পাদক আনিসুল হক, ডিইউজের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সোহেল হায়দার চৌধুরী প্রমুখ।