ষড়যন্ত্র মূলক মিথ্যা অভিযোগ দায়ের প্রতিবাদে জন সাধারণ মানুষের বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত 

ষড়যন্ত্র মূলক মিথ্যা অভিযোগ দায়ের প্রতিবাদে জন সাধারণ মানুষের বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত 

এস এল টি তুহিন :
বরিশাল নগরীর ৫নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলার কেফায়েত হোসেন রনির বিরুদ্ধে গত ১৬ই মে, সোমবার কালুশাহ সড়ক এলাকার এক তরুনী বাদী হয়ে বরিশাল নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে ষড়যন্ত্র করে একটি একটি অভিযোগ দায়ের করে। তার প্রতিবাদে কাউন্সিলার কেফায়েত হোসেন রনির এর বাসার সাবনে আজ শনিবার বিকাল ৩ টায় ৫নং ওয়ার্ডের অধিক অংশ মানুষ প্রতিবাদী ও বিক্ষোভ সমাবেশ  করেন। বিক্ষোভ সমাবেশ ও প্রতিবাদ জানিয়ে বক্তৃতা করেন  যুবসমাজ ও বিভিন্ন পেশার  জনসাধারণ ।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন,৫ নং ওয়ার্ডের আওয়ামী লীগের সভাপতি মোসাঃ আলমতাজ বেগম। সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোঃ শামীম আহমেদ। আজাদ খান। মোস্তফা আঃ আজিজ,জাহাঙ্গীর, রাজু,কমান্ডার নয়ন,সুমন,ইলিয়াস মাহমুদ, ডাঃফরিদ উদ্দিন আহমেদ, ছাব্বির হোসেন,আরিফুর রহমান সাইদুল, রাসেল ভুঁইয়া, মোঃহাফিজুল ইসলাম শান্ত, মোসাঃপারভিন বেগম,রানু বেগম,লুৎফর বেগম

প্রতিবাদী বিক্ষোভ সমাবেশে তারা দাবি আদায় এর লক্ষে বক্তৃতা করেন এ সময় দেশের সর্ব কনিষ্ঠ কাউন্সিলর কেফায়েত হোসেন রনির বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন টাইব্যুনালে মিথ্যা অভিযোগ দায়ের করায় সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোঃ শামীম আহমেদ বলেন, আমি এই অভিযোগের সুষ্ঠু নিরপেক্ষ তদন্তের মাধ্যমে সঠিক রহস্য উন্মোচন করার জন্য অনুরোধ করছি এবং আইনের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে ষড়যন্ত্র কারীদের মুখ উন্মোচন করে সঠিক বিচার দাবি জানাই।

প্রতিবাদী বিক্ষোভ সমাবেশে এ সময় আরো বক্তৃতা করেন, মোঃ আজাদ খান বলেন, বিগত ১৬-১৭ বছর যাবত উন্নয়ন মুলোক কাজ থেকে পলাশপুর বাসী বঞ্চিত ছিলো,যখন আমাদের মাঝে কেফায়েত হোসেন রনি এসে উন্নয়নের জোয়ার বয়ে আনে। ঠিক তখনি কিছু কুচক্রীমহল কাউন্সিলর কেফায়েত হোসেন রনির পিছনে আদা-জল খেয়ে লেগে পরে। আমি এর তীব্র ক্ষোভ নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি এবং সেই সাথে আইনের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে ষড়যন্ত্র কারীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থাগ্রহণ করার জন্য অনুরোধ জানাচ্ছি।

পলাশপুর কাজীর গোরস্থানের বাসিন্দা মোঃ সাঈদুল ইসলাম বলেন, কাউন্সিলার কেফায়েত হোসেন রনিকে তার ছোট বেলা থেকে আমি চিনি সে সৎ ও সমাজ সেবক এবং পরোপকারী ,আমার জানা মতে সে কোন অনৈতিক কর্মকান্ডে সাথে জড়িত নয় ও থাকতে পারে না এবং আমার আত্মবিশ্বাস আগামী নির্বাচনে অংশগ্রহন করতে না পারে, সেই জন্য এই ষড়যন্ত্র করে মিথ্যা অভিযোগ দায়ের করে ষড়যন্ত্র কারিরা, আমি এর তিব্র নিন্দা জানাচ্ছি।

স্থানীয় সমাজ সেবক মোঃ জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, আমি কোন রাজনৈতিক দলের সাথে জড়িত না,রনি ভাই আমাদের ৫নংওয়ার্ড কাউন্সিলর। যারা এই সব গুজব ও মিথ্যা অভিযোগ করেছে, তারা মানুষ রুপি শয়তান। তাদের বিচার আল্লাহ নিশ্চয়ই করবেন ইনশাআল্লাহ।

প্রতিবাদী বিক্ষোভ সমাবেশের সভানেত্রী মোসাঃ মুকুল বলেন, পলাশপুর বিগত ১৬-১৭ বছরে ও কোন উন্নয়ন হয় নাই। কনিষ্ঠ কাউন্সিলর কেফায়েত হোসেন রনি আমাদের মাঝে আসার পর উন্নয়নের জোয়ার বয়ে আনে। ঝড়বৃষ্টি মাথা নিয়ে আমাদের কাছে এসেছে আমরা কেমন আছি আমাদের খাবার আছে কিনা সব ধরনের খোজ খবর নিছেন তিনি।আমাদের বিপদে-আপদে পাশে দাড়িয়েছে ।

তিনি বলেন, করোনার মধ্যে সবসময় আমাদের পাশে রয়েছেন তিনি এবং মাদকের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়িয়েছেন।যারা এই ষড়যন্ত্র করেছে তারা পলাশপুর বাসির ভালো চায় না। কাউন্সিলর রনির বিরুদ্ধে এই মিথ্যা অভিযোগ অস্বীকার করে ও তিব্র নিন্দা জানাই।

৫ নং ওয়ার্ডের আওয়ামী লীগের সভাপতি মোসাঃ আলমতাজ বেগম বলেন, কেফায়েত হোসেন রনি এই ৫ নাম্বার ওয়ার্ডে ওর জন্ম আর আমরাও ওরে ছোট বেলা থেকে হাটি হাটি পা থেকে লেখা পড়া শিখাইছি।  রনিকে আমরা সকলে নির্বাচনের সময় একতাবদ্ধ ভাবে  কাউন্সিলার বানাইছি। আজকের রনির জন্য এই অবহেলিত ৫ নং ওয়ার্ডে রাস্তা স্কুল সব দিকে উন্নয়ন হতে আছে তাই রনির উপরে সকলে খুশি। আমরা রনিকে সবাই ভালোবাসি আজকের সেই ছেলের নামে মিথ্যা অভিযোগ দেওয়া হয়েছে। তার নামে মিথ্যা অপবাধ দেওয়া হয়েছে যারা এমন মিথ্যা অপবাদ দিল ৫ নং ওয়ার্ডের সকলে তাদের বিচার দাবি করছি।

প্রতিবাদী সমাবেশে এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন, মোঃ ইলিয়াচ মাহামুদ,মোঃমিরাজ বক্স, মোঃসাঈদুল মোল্লা, মোঃআমিনুল ইসলাম সমির।মোসাঃ সুরমা বেগম,মোসাঃ ডলি বেগম,মোঃ তৌহিদুল ইসলাম, মোসাঃ রোজীনা বেগম ও মোসাঃমনি বেগম।মোসাঃজেসমিন বেগম।