বাউফল কালিশুরি বাজারে পূর্ব শত্রুতার জেরে বাহাদুরের পরিবারের উপর হামলা। মানবতারকন্ঠ

বাউফল কালিশুরি বাজারে পূর্ব শত্রুতার জেরে বাহাদুরের পরিবারের উপর হামলা। মানবতারকন্ঠ

বাউফল পটুয়াখালী প্রতিনিধি।
পটুয়াখালীর বাউফলে কালিশুরী ইউনিয়নের মাদক সম্রাট করিম গাজী বিভিন্ন সময় মাদক নিয়ে পুলিশের হাতে আটক হওয়া তথ্য প্রদানের সন্দেহ করে কালিশুরি বাজারে বাহাদুর হালদার এর পরিবারের উপহার কিশোর গ্যাংয়ের প্রধান সদস্য করিম গাজী বাহাদুরের বাসায় ঢুকে এলোপাতাড়ি মারপিট করে ভাঙচুর ও লুটপাট করে বাসায় ব্যাংক ও সমিতির লোনের রক্ষিত ৫ লাখ টাকা এবং একটি চেন দুইটি রুলী দুইটি কানের জিনিস নিয়ে যায়। লাইজু বেগম ঘটনাস্থলে লুটিয়ে পড়লে স্থায়ী লোকজন এসে তাকে উদ্ধার করে স্থায়ী একটি ক্লিনিকে নিয়ে গেলে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বাউফল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে রেফার করা হয়। লাইজু বেগম আরো জানান আমাকে এলোপাতাড়ি লাঠি দিয়ে আমার হাতে এবং বুকে ও তলপেটে লাথি মারে আমার ব্লেডিং হয়েছে এবং ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেয় তাতে আমার মাথা এবং বুকে প্রচন্ড ব্যথা এবং জখম হয়। স্থায়ী সূত্রে আরো জানা যায় জলিল গাজীর ছেলে করিম গাজী বিভিন্ন সময় গাঁজাসহ কালিশুরী ক্যাম্পের ইনচার্জ তাকে আটক করেন। একাধিক বার মাদকসহ তাকে থানায় আটক করা হয়েছে। তিনি আরো বলেন কালিশুরি বাজারে একটি কুচক্রী মহল আছে সারাদিন আমাদের ব্যবসায়ীদের বিপক্ষে বদনাম ছড়িয়ে থাকে এবং আমাদের পরিবারের লোকজনকে মিথ্যা মামলা হামলা দিয়ে হয়রানি করেছেন জলিলের স্ত্রী। এলাকা সূত্রে জানা যায় কালিশুরি বাজারে গত১৬ তারিখ আনুমানিক সন্ধ্যা ৮ টার সময় এ ঘটনা ঘটে। ব্যবসায়ী বাহাদুর হাওলাদার বলেন আমি থানার ধারে ধারে মামলা করার জন্য অনেক ঘোরাঘুরি করেছি কিন্তু আমার মামলা বাউফল থানার ওসি মামলা নেয়নি। পরে আদালতের সহযোগিতায় থানায় একটি মামলা দায়ের করেছি যাহার নং ৩৭৬ একটি প্রভাবশালী মহলের সার্বিক সহযোগিতায় বারবার আইনের ফাঁক-ফোকর দিয়ে বেরিয়ে আসে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার মাদক ও দুর্নীতি জিরো টলারেন্স ঘোষণা করেছেন। সেখানে মাদক সম্রাটরা ক্ষমতার উৎস কোথায়।