সীমিত সম্পদ দিয়ে জনগণের পাশে থাকার আশ্বাস প্রধানমন্ত্রীর। মানবতারকন্ঠ

সীমিত সম্পদ দিয়ে জনগণের পাশে থাকার আশ্বাস প্রধানমন্ত্রীর। মানবতারকন্ঠ

মানবতারকন্ঠ রিপোর্ট।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ইউক্রেন-রাশিয়ার যুদ্ধের কারণে বিশ্বে বড় বড় দেশগুলো সংকটের মধ্যে পড়েছে। সেখানে আমাদের অবস্থা আরও করুণ। তারপরও আমাদের যে সীমিত সম্পদ আছে তাই দিয়ে আমরা জনগণের সেবা করে যাব।
সোমবার বাংলাদেশ লোক প্রশাসন প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের ৭৩ তম বুনিয়াদি প্রশিক্ষণ কোর্সের সমাপনী অনুষ্ঠানে গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে এসব কথা বলেন তিনি।
এ সময় নবীন প্রশিক্ষণার্থীদের উদ্দেশ্যে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ২০৪১ সালে আমরা যে বাংলাদেশ গড়বো, তা নিয়ে কাজ করবে তরুণরা। আমরা শুধু পরিকল্পনা দিয়েছি, কারণ আমরা তো অতদিন বেঁচে থাকতে পারবো না। তরুণদেরকেই এই পরিকল্পনা এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে।
তিনি আরও বলেন, ২০৪১-এ থামলেই চলবে না, আমাদের হাতে অনেক কাজ। আমাদের উন্নত ও সমৃদ্ধ দেশ হিসেবে গড়ে উঠতে হবে। একশো বছরের ব-দ্বীপ পরিকল্পনা প্রণয়ন করেছি আমরা। কারণ বাংলাদেশ ব-দ্বীপের একেক অঞ্চলের একেক সমস্যা। সেদিকে খেয়াল রেখেই এই পরিকল্পনা প্রণয়ন করা হয়েছে।
দেশব্যাপী অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ানো, জীবনমান উন্নয়ন এবং অর্থনীতিতে এর প্রভাব সম্পর্কে শেখ হাসিনা বলেন, একটা ঘর যখন আমি দিলাম, সে তখন উৎপাদন করছে। সে গাছ লাগাচ্ছে, আরও নানা কাজ করছে। এটিও দেশের অর্থনীতিতে ভূমিকা রাখছে।
এবছর ৭০ জন পুরুষ ও ২৩ জন নারী কর্মকর্তা বিপিএটিসি থেকে প্রশিক্ষণ নিয়েছেন। অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে তাদের হাতে সনদ তুলে দেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী।