বোনকে উত্ত্যক্ত করায় ভাই প্রতিবাদ করলে কুপিয়ে পিটিয়ে রক্তাক্ত জখম করে বখাটে

বোনকে উত্ত্যক্ত করায় ভাই প্রতিবাদ করলে কুপিয়ে পিটিয়ে রক্তাক্ত জখম করে বখাটে

সবুজ হাওলাদার(বাউফল)প্রতিনিধি।
পটুয়াখালীর বাউফল উপজেলায় স্কুলছাত্রী বোন স্কুলে আসা যাওয়ার সময় রাকিব ফরাজি ও খোকন ফরাজি নামে দুই বখাটে উত্ত্যক্ত করার প্রতিবাদ করায় ভাইকে কুপিয়ে পিটিয়ে রক্তাক্ত জখম করা হয়েছে।

ঘটনাটি ঘটেছে বৃহস্পতিবার (১৯শে জানুয়ারি) সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে উপজেলার কেশবপুর ইউনিয়নের মমিনপুর বাদামতলা বাজারের দক্ষিণ পাশে পাকা রাস্তার উপর।

আহত ভাইয়ের নাম মোঃ নাঈম বয়াতি (২২), তিনি কেশবপুর ইউনিয়নের ০৮নং ওয়ার্ডের মমিনপুর গ্রামের বাসিন্দা মোঃ আফজাল বয়াতির ছেলে। তার বোনের নাম মোসাঃ সাদিয়া আক্তার (১৪), তিনি মমিনপুর আদর্শ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণীর ছাত্রী।

আর হামলাকারী বখাটের নাম ১/মোঃ রাকিব ফরাজি (১৮), পিতা মোঃ সাইফুল ফরাজী, ২/মোঃ খোকন ফারজি (৩৫), পিতা মোঃ সাইফুল ফরাজী, একই গ্রামের বাসিন্দা।

আহতের পরিবার ও স্থানীয়রা জানান, নাঈমের আপন ছোট বোন সাদিয়া আক্তার মমিনপুর আদর্শ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণীর ছাত্রী। তাকে স্কুলে আসা যাওয়ার সময় রাকিব ফরাজি ও খোকন ফরাজি উত্ত্যক্ত করিয়া আসিতেছিল। এঘটনা সাদিয়া তার ভাইকে জানালে প্রতিবাদ করায় শত্রুতার সৃষ্টি হয়।

আরও জানায়, নাঈম বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় বাজার থেকে তার বাড়ি যাওয়ার সময় বাদামতলা বাজারের দক্ষিণ পাশে পৌছামাত্র পূর্ব থেকে ওত পেতে থাকা রাকিব ফরাজি ও খোকন ফরাজি সহ আরো ৪-৫ মিলে তার উপর অতর্কিত হামলা চালায়। এসময় রাকিব ফরাজি নাঈমের পেটের বাম পাশে ধারালো অস্ত্র দ্বারা সজরে আঘাত করিলে পেটের বাম পাশ কেটে রক্তাক্ত জখম হয়। এদিকে নাঈমের ডাকচিৎকার শুনে স্থানীয়রা এসে তাকে উদ্ধার করে বাউফল হাসপাতালে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক উন্নত চিকিৎসার স্বার্থে বরিশাল হাসপাতালে পাঠিয়ে দেন।

এব্যাপারে হামলাকারী বখাটে রাকিব ফরাজি ও খোকন ফরাজি সহ তাদের পরিবারের সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করে প্রতিবেদক ব্যর্থ হন।

এদিকে স্থানীয় চেয়ারম্যান সালেহ উদ্দিন পিকুর মোবাইল নম্বরে যোগাযোগ করলে তাকে পাওয়া যায়নি।

বাউফল থানার ওসি আল মামুন বলেন, এব্যাপারে এখনো কোনও অভিযোগ পাওয়া যায়নি, তবে অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।